Logo
শিরোনাম :
ঠাকুরগাঁওয়ে নিজ আলু ক্ষেত থেকে যুবকের লাশ উদ্ধার  নড়াইলে শীত এলেই পিঠা ব্যবসায় সংসারে আসে সচ্ছলতা সৈয়দপুরে নিজ বাসায় ব্যবসায়ী খুন স্ত্রী ও দুই ছেলে আটক, ব্যাপক চাঞ্চল্য টাঙ্গাইলে ব্যবসায়ী সামছুল হত্যাকারীদের গ্রেপ্তার দাবিতে বিক্ষোভ মিছিল ও মানববন্ধন নড়াইলে কালিয়ার নবগঙ্গা সেতুর নির্মাণ কাজ শেষ হবে কবে! সিংগাইরে উদ্ধার হওয়া অজ্ঞাত নারীর হত্যার রহস্য উন্মোচন স্বামী স্ত্রী গ্রেপ্তার নড়াইলে ক্রাইম ইনভেস্টিগেশন সেল কর্তৃক বিকাশের টাকা উদ্ধার মানিকগঞ্জে গৃহবধু হত্যা মামলায় একজনের যাবজ্জীবন কারাদন্ড নীলফামারীতে ট্রেন দূর্ঘটনায় উত্তরা ইপিজেড’র ৪ শ্রমিকের মৃত্যু, আহত ৭ নাগরপুরে ই-নামজারী ও ভূমি সেবা প্রশিক্ষণ শুরু
নোটিশ :
সম্পাদক মন্ডলীর সভাপতি : আলহাজ্ব এ.এম নাঈমূর রহমান দূর্জয় ,সম্পাদক ও প্রকাশক মো: জালাল উদ্দিন ভিকু,সহ-মফস্বল সম্পাদক মো: জাহিদ হাসান হৃদয় ।

ঘিওরে চালের লক্ষ্য মাত্রা পূরণ । ধানে কৃষকের আগ্রহ কম

রিপোর্টার / ১০১ বার
আপডেটের সময় : মঙ্গলবার, ১৪ সেপ্টেম্বর, ২০২১

রামপ্রসাদ সরকার দীপু স্টাফ রিপোর্টার ঃ১৪ সেপ্টেম্বর-২০২১,মঙ্গলবার।
মানিকগঞ্জের ঘিওর উপজেলার অভ্যন্তরীণ বোরো মৌসুমে সরকারিভাবে চাল সংগ্রহ অভিযানে সফলতা হলেও খাদ্যগুদামে ধান সংগ্রহ অভিযান ব্যর্থ হয়েছে। লক্ষ্যমাত্রার শতভাগ চাল সংগ্রহ করতে পেরেছে স্থানীয় খাদ্য বিভাগ। নির্ধারিত সময় অতিবাহিত হবার পরেও এলাকার কৃষকেরা খাদ্যগুদামে ধান দেয়নি। খোলা বাজারে ধানের দাম বেশি পাবার কারনে তারা হাট বাজারে ধান বিক্রি করেছে। তবে নির্ধারিত সময়ে মাত্র ২০৭ মেঃ টন ধান সংগ্রহ করা হয়েছে। চাল অভিযান সফলতা হলেও বোরো ধান সংগ্রহ ভেস্তে যায়।
উপজেলা খাদ্য অফিস সূত্রে জানা গেছে, চলতি বছর ২৫ মে থেকে বোরো ধান সংগ্রহ ও মে মাসের ২য় সপ্তহে থেকে চাল সংগ্রহ অভিযান শুরু হয়েছে। সংগ্রহ অভিযান চলে ৩১ আগষ্ট পর্যন্ত। সরকারের টার্গেট ৯৩৬ মেঃ টন বোরো ধান। ২২ মেঃ টন চাল নির্ধারণ করা হয়। কিন্তু ধান সংগ্রহ হয় মাত্র ২০৭ টন।
উপজেলা ধান ও চাল ক্রয় কমিটির মাধ্যমে অডিটরিয়ামে সরাসরি লটারীর মাধ্যমে কৃষদের নামের তালিকা সংগ্রহ এবং যাচাই বাছাই করা হয়। পরে কৃষকদের কাছ থেকে সরাসরি ধান কেনা সকল প্রকার ব্যবস্থা করা হয়। জমির পরিমান অনুযায়ী কোন কৃষক কী পরিমান ধান দিতে পারবেন তা খোলামেলা আলোচনা করা হয়। প্রতি কৃষক ১ থেকে ২ টন পর্যন্ত ধান দিতে পারবে খাদ্য গুদামে। এ ব্যাপারে দৈনিক কালের কাগজকে  জানান,খাদ্য বিভাগের পক্ষ থেকে মাইকিং,ব্যাপক প্রচার প্রচারনা ও কৃষকদের তাগাদা দিলেও তারা ধান দিতে আসেনি। স্থানীয়ভাবে হাট বাজারে ধানের মূল্য বেশি থাকার কারনে ধান বিক্রি করেনি ক্ষুদ্র কৃষকেরা। বর্তমানে জেলার ঐতিহ্যবাহী ঘিওর হাট বাজারে প্রতি মন শুকনা ধান ১১০০ টাকা থেকে ১১৭০ টাকা মনে ধান বিক্রি হচ্ছে। অথচ সরকার প্রতি মন ধানের মূল্য নির্ধারন করেছে ১০৮০ টাকা। এর পরে টাকা উত্তোলনে নানা ধরনের ঝামেলা থাকায় সাধারন কৃষকেরা মুখ ফিরিয়ে নিয়েছে।
ঘিওর বাজারের ধান ব্যবসায়ী আনোয়ার, হারান ঘোষ, মোনায়েমসহ অনেক ব্যবসায়ী  দৈনিক কালের কাগজকে জানান, বাজারে প্রতি মন শুকনা ধান বর্তমানে ১১৫০ টাকা দরে বিক্রি হচ্ছে। অন্যান্য বছরের চেয়ে এবার ধানের মূল্য বেশি থাকার দরুন খাদ্যগুদানে কৃষকের ধান বিক্রি করেনি।
উপজেলা ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসিএলএসডি) নিতীশ চন্দ্র দাশ জানান, আমরা সরকারি বিধি মোতাবেক চাল ও ধান ক্রয়ের ব্যবস্থা করেছি। চালের লক্ষমাত্রা পূরণ করা হয়েছে। তবে হাট বাজারে বোরে ধানের দাম বেশি থাকার কারনে অনেক চেষ্টা করেও কৃষকদের কাছ থেকে ধান সংগ্রহ করা যায়নি।
উপজেলা খাদ্য কর্মকর্তা মোহাম্মদ শফিকুল আলম অফিসে না থাকার দরুন তার সাক্ষাত নেওয়া সম্ভব হয়নি।

 


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো সংবাদ

Theme Created By ThemesDealer.Com