Logo
শিরোনাম :
এ শহরের মানুষ আমাকে বিমুখ করেনিঃ আইভী পাংশায় কৃষক লীগের বিশেষ বর্ধিত সভা অনুষ্ঠিত রাণীশংকৈলে সড়ক দুর্ঘটনায় মোস্তফা শেঠের মৃত্যু নীলফামারীতে স্কুল অব জার্নালিজমের কোর্স সমাপনী ও সনদ বিতরণ অনুষ্ঠিত ঘিওর উত্তর পাড়া যুব সংর্ঘের উদ্যোগে বার্ষিক ক্রীড়া প্রতিযোগিতা ও পুরস্কার বিতরন মানিকগঞ্জে ভাষা শহীদ রফিক ব্লাড ডোনার গ্রুপের কার্যালয় উদ্বোধন ফরিদপুরে নবজাতক কপাল কেটে ফেলেছে নার্স ও আয়া নাগরপুরে শিশু আফিয়ার রহস্যজনক মৃত্যু পাংশায় হতদরিদ্র নারীর চোখের ছানী অপারেশনে আর্থিক সহযোগিতা প্রদান করল ব্লাড ব্যাংক সৈয়দপুরে যুবককে পিটিয়ে হত্যা করে ক্যানেলের পানিতে গুম, ৩ জন আটক
নোটিশ :
সম্পাদক মন্ডলীর সভাপতি : আলহাজ্ব এ.এম নাঈমূর রহমান দূর্জয় ,সম্পাদক ও প্রকাশক মো: জালাল উদ্দিন ভিকু,সহ-মফস্বল সম্পাদক মো: জাহিদ হাসান হৃদয় ।

ঘিওরে বয়স্ক, বিধবা ও প্রতিবন্ধী ভাতাভোগীদের টাকা চলে যাচ্ছে অজ্ঞাত নম্বরে

রিপোর্টার / ১৭৯ বার
আপডেটের সময় : শনিবার, ৪ সেপ্টেম্বর, ২০২১

রামপ্রসাদ সরকার দীপু স্টাফ রিপোর্টার :০৪ সেপ্টেম্বর-২০২১,শনিবার।
মানিকগঞ্জের ঘিওর উপজেলার সমাজ সেবা অফিসের একশ্রেনীর কর্মকর্তা ও কর্মচারীদের দায়িত্ব ও অবহেলার কারনে অসহায় দরিদ্র ভাতাভোগিদের টাকা চলে যাচ্ছে অজ্ঞাত নম্বরে। রেজিস্ট্রেশন করার সময়ে অদক্ষ কম্পিউটার দিয়ে বিকাশ ও নগদ একাউন্ট করার দরুন অনেক মোবাইল নম্বর ভুল সহ নানা কারনে বয়স্ক, বিধবা ও প্রতিবন্ধীদের ভাতার টাকা তুলতে গিয়ে নানা ধরনের হয়রানি হচ্ছে। অধিকাংশ লোকজনের টাকা চলে গেছে অজ্ঞাত নম্বরে। দীর্ঘদিন আগে বিভিন্ন ব্যাংকের সামনে রোদ বৃষ্টির মধ্যে ঘন্টার পর ঘন্টা দাড়িয়ে থেকে ভাতার টাকা তুলতো হতো এলাকার শত শত লোকজনকে। কহু কষ্ট ও বিরম্বনার শিকার হয়ে অনেকে বাড়িতে চলে যেত। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নির্দেশ শুরু হয়েছে ইনফরমেশন সিস্টেম (এম আর এস)। যার মাধ্যমে ঘরে বসেই ভাতার মোবাইলের মাধ্যমে উত্তোলন করা যাবে। কিন্তু ঘিওরে বিধবা, বয়স্ক ও প্রতিবন্ধী ভাতাভোগীদের ক্ষেত্রে দেখা গেছে উল্টা চিত্র। উপকার ভোগিদের নম্বরে টাকা না গিয়ে চলে যাচ্ছে অন্য নম্বরে। আর এই টাকাগুলো অনায়াসে তুলে নিচ্ছে একটি সংঘবদ্ধ প্রতারক চক্র।
জানা গেছে, উপজেলায় সরকারি ভাতা ভোগিদের সংখ্যা মোট ৮ হাজার ৬শ’ ১৫ জন। জন এর মধ্যে বয়স্ক ৫ হাজার ১শ’ ৭৪ জন, বিধবা ১ হাজার ৬শ ৬৪, অসচ্ছল প্রতিবন্ধী ভাতা ১ হাজার ৬শ ৫৮ জন এবং অন্যান্য ১১৯ জন। তাদের প্রত্যেকেই মোবাইল ব্যাংকিংয়ের আওতাই আনা হয়েছে। ঘিওর গোলনগর গ্রামের যতীন সরকার জানান, তার দেওয়া নগদ/ বিকাশ নম্বরে টাকা আসেনি। তিনি অফিসে অভিযোগ করলে জনৈক কর্মকর্তা বলেন আপনার টাকা অন্য নম্বরে চলে গেছে। আপনি চলে যান। আমাদের কিছুই করার নেই। আপনাকে পরে জানানো হবে। পরে এই নম্বরে ফোন করলে সেটি বন্ধ পাওয়া যায়। আবার কেই কেই বলছে নিজের দেওয়া নম্বরে টাকা এলেও পিন নম্বরে কারনে টাকা তুলতে পারছেনা। তার মতো বহু লোকজন বয়স্ক, প্রতিবন্ধী বিধবা মহিলারা দিনের পর দিন অফিসে ঘুরেও ভাতার টাকা এ পর্যন্ত তুলতে পারেনি। প্রতিদিন সমাজ সেবা অফিসে বহু লোকজন এমন অভিযোগ নিয়ে আসলে তাদের সাথে সমাজ সেবা অফিসের কর্মকর্তা ও কর্মচারীরা খারাপ আচারন করেন বলেও অভিযোগ রয়েছে। সমাজ সেবা অফিসের কতিময় লোকজনের অবহেলার কারণে সরকারের ভাবমূর্তি মারাত্মকভাবে ক্ষুন্ন হচ্ছে। এ অফিসের লোকজন ভ’ক্তভোগিদের কোন প্রকার সহযোগিতা করে না বলে সংশ্লিষ্ট সুত্র জানিয়েছে।

উপজেলা সমাজ সেবা কর্মকর্তা আব্দুল মান্নান জানান, ঘিওর এ পর্যন্ত ২৫২ জন লোকের ভাতার টাকা অন্য নম্বরে চলে গেছে। ইতোমধ্যে আমরা একটি তালিকা তৈরি করে সংশোধনের জন্য উর্দ্ধতন কর্তপক্ষের নিকট পাঠিয়েছি।। তবে নগদ একাউন্ট জারা খুলে দিয়েছেন তাদের সাথে আমরা কথা বলেছি। তারা মাঠ পর্য়ায়ে এসে সমাধান করার কথা বলেছে। বিধি অনুসারে আমার অফিসের অনুদানের টাকা বিতরনসহ যাবতীয় কার্যক্রম হয়ে থাকে বলে তিনি জানান।

রামপ্রসাদ সরকার দীপু

 


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো সংবাদ

Theme Created By ThemesDealer.Com